একাধিকবার ভোটার নিবন্ধনের ফলে যা হতে পারে ? জেনেনিন এখানে…

একাধিকবার ভোটার নিবন্ধনের ফলে যা হতে পারে : বাংলাদেশ আইন অনুযায়ী একজন বাংলাদেশি প্রকৃত নাগরিক শুধু মাত্র একবার জাতীয় পরিচয় পত্র/ ভোটার আইডি কার্ড করার অধিকার রাখেন।

বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশন ভোটার তালিকা হালনাদাগ করার জন্যে প্রতি বছর, বিশেষ করে, বছরে একবার ধাপে ধাপে ভোটার তালিকা হালনাগাদ করে থাকেন।

একাধিকবার ভোটার নিবন্ধনের ফলে যা হতে পারে ? জেনেনিন এখানে...
একাধিকবার ভোটার নিবন্ধনের ফলে যা হতে পারে ? জেনেনিন এখানে…

তো আপনারা যারা ভোটর হওয়ার যোগ্য প্রার্থি বা এখনও ভোটর হন নাই। তারা উক্ত ভোটার হালনাগাদের সময় ২নং নিবন্ধন ফরম পূরণ করে, প্রয়োজনীয় কাগজ পত্র দাখিল করে নতুন ভোটার হওয়ার জন্য আবেদন করে ভোটার হতে পারে।

এক্ষেত্রে, যারা ইতোমধ্যে ভোটার হয়েছেন। তারা যদি ভুল করে দ্বিতীয় বার ভোটার হতে যাবেন না কখনও। আপনি যদি একবার ভোটার হওয়া সত্ত্বেও একাধিক বার ভোটর হতে যান। তবে নিশ্চিন্তে বিপদে পড়ে যাবেন।

তার কারণ একাধিকবার ভোটার হওয়া আইনত দন্ডনীয় অপরাধ মূলক কাজ। আর সেই জন্য একাধিক ভোটার হওয়ার ফলে জেল ও জরিমানা হতে পারে।

জেল ও জরিমানার থেকে বড় কথা হলো আপনার ভোটাধিকার হাতে পারেন। একাধিকার ভোটর হওয়ার ফলে আপনার যে কয়টি ভোটার হালনাগাদ থাকবে, তার সবগুলো নির্বাচন অফিস থেকে ডিলিট করে দেওয়া হবে বা ডিলিট হয়ে যাবে।

আমাদের মধ্যে অধিকাংশ মানুষ ভুলবসতঃ বা ইচ্ছাকৃত ভাবে একাধিকবার ভোটর হয়ে যায়। যাকে মূলত দ্বৈত ভোটর বলা হয়। অনেক লোক আগের তথ্য গুলোর ভুল খূজে পেলে পুনরায় সঠিক তথ্য দিয়ে ভোটার হালনাগাদ করেন।

অনেকেই বলেন যে, আমি তো স্মার্ট কার্ড এর জন্য ছবি তুলেছি। কিন্তু এখনও ভোটার হয়নি।

এছাড়া, মেয়েরা বলেন যে, বিয়ের পরে তো স্বামীর বাড়িতে এসেছি। এখন এলাকার চেয়্যারমেন ও মেম্বার’রা নতুন করে, ভোটর হওয়ার জন্য বলেছেন, তাই ভোটার হয়েছি।

আবার অনেকেই বলেন যে, আমার তো ভোটার আইডি কার্ড হারিয়ে গেছে। বা স্লিপ হারিয়ে গেছে। তাই আবার ভোটার হয়েছি। আপনারা এই সকল ভুল কখনই করবেন না।

একাধিকবার ভোটর হলে যা হবে। তার মধ্যে প্রথম বার যে ভোটার তথ্য ছিল তা বহাল থাকবে। আর পরবর্তীতে নতুন করে হওয়া ভোটার এর তথ্য অটোমেটি ভাবে ডিলিট হয়ে যাবে। আপনি যত বার ভোটর হবেন ততবার ভোটার তথ্য ডিলিট হবে।

কিন্তু কিছু কিছু ক্ষেত্রে, একটি বিষয় লক্ষ্য করা যায়। যারা একাধিকবার ভোটার হয়েছে। তাদের সকল তথ্যই কোন নোটিশ ছাড়াই অটো ডিলিট হয়ে যাচ্ছে।

মানে আপনি আর ভোটার থাকতে পারবেন না। কোন ভোটার তালিকায় আপনার নাম থাকবে না।

আর ভোটার তালিকায় আপনার নাম না থাকলে কোন ভাবেই ভোট দিতে পারবেন না। এছাড়া কার্ড সংগ্রহ করতে পারবেন না। আগের ভোটার হওয়া কার্ড দিয়েও কোন কাজ করতে পারবেন না।

তার কারণ আপনার তথ্য উপজেলা নির্বাচন কমিশনের সার্ভার কে ডিলেট অবস্থায় থাকবে। আর সেটি ঠিক করার জন্য অফিসে ঘুরতে ঘুরতে পায়ের জুতা খয় হয়ে যাবে।

আমার কথা কি বিশ্বাস হচ্ছে না? তাহলে নিচে দেওয়া ছবিটি দেখুন। এই ব্যাক্তি প্রথম ভোটার হওয়ার পরে, পরবর্তীতে ভোটার হালনাগাদের সময় আবারো একাধিকবার নাম পরিবর্তন করে, ভোটার হয়ে যায়।

উক্ত ছবিতে থাকা যাকে দেখতে পারছেন। তিনি হলেন, সামিনা। তিনি সুবর্ণ তলী পুরাতন পাড়ার একজন ভোটার। তিনি পুনরায় সাবিনা খাতুন নামে ভোটার হালনাগাদ করেন। এবং ঠিকানা দেন কচুবাড়িয়া।

তার দুইটি নতুন আইডি কার্ড কিন্তু হয়েছে। কিন্তু বর্তমানে নির্বাচন কমিশনের সার্ভারে তার দুইটি ভোটার তথ্যই কিন্তু ডিলিট অবস্থায় আছে। তিনি তার ভোটাধিকার হারিয়েছেন।

আর উক্ত সামিনা বা সাবিনা খাতুন নতুন করে, আবারো ভোটার হওয়ার জন্য ভোটার হালনাগাদ করেন। তার আবেদন গৃহিত হওয়ার পরেও নির্বাচন কমিশনে আবারো ডিলিটেড হয়ে যাবে। তার নামে আর কখনও জাতীয় পরিচয় পত্র কার্ড করা সম্ভব হবে না।

আমাদের বাংলাদেশে এই ধরণের একাধিকবার ভোটার হওয়ার মতো হাজার হাজার মানুষ আছে। তো যারা একাধিকবার ভোটার হয়ে আজ তাদের ভোটাধিকার হারিয়েছেন।

শুধু তাই কিন্তু নয়, তারা কার্ডও গ্রহণ করতে পারবে না। আগের কার্ড কাছে থাকলেও সেটি কোন কাজে লাগাতে পারছেন না।

তাই শেষ আলোচনায় বলতেছি আপনি যদি একবার ভোটার হয়ে থাকেন। তবে পুনরায় ভোটার হতে যাবেন না। আপনার ভোটার তথ্যগত যদি কোন ভুল থাকে।

এতে কোন সমস্যা নেই। তবে তথ্যগত ভুলের কারণে যদি কোন সমস্যা হয়। তবে ভোটার আইডি কার্ড সংশোধনের আবেদন করতে পারবেন।

এছাড়া, ভোটার আইডি কার্ড সংক্রান্ত আরো সঠিক তথ্য পেতে আপনারা উপজেলা নির্বাচন অফিসে যোগাযোগ করতে পারেন। তারা আপনাকে সঠিক পরামর্শ প্রদান করবেন।

শেষ কথাঃ

আপনারা উক্ত আলোচনায় জানতে পারলেন, একাধিকবার ভোটার নিবন্ধনের ফলে যা হতে পারে এই সম্পর্কে। বিশেষ করে, আপনি যদি একাধিকবার ভোটার হোন তবে, আপনার জেল, জরিমানা সেই সঙ্গে ভোটাধিকার হারাতে হবে।

তো এই পোস্ট সম্পর্কে আপনার যদি আরো কিছু জানার থাকে। তবে অবশ্যই আমাদের কমেন্ট করে জানাতে পারেন।

ধন্যবাদ।

আপনার জন্য আরও আর্টিকেল

Leave a Comment